It is very glad to inform that all of our services are no longer confined to the Bengali people. Our service fulfills the needs of the beginners, raising the confidence of all religions, people, and nations irrespective of nationality in different countries of the world. That's why we started providing services in English version along with Bengal as well as for all. Besides, we have increased the quality of services and other facilities. We hope that we can play an appropriate role in fulfilling your dreams.
Drop Down MenusCSS Drop Down MenuPure CSS Dropdown Menu

.

.

Spiritual Pursuit (সাধনা)

জগত সংসারে মানুষের মনে যখন হতে ক্ষমতার লোভ, শক্তির অহঙ্কার, সম্পদের পার্চুয বাসা বেধেছে হয়তো সে সময় হতেই মানুষ ঈশ্বরীক শক্তির নিকট পার্থনা শুরু করে এ সকল পাওয়ার আসায়। যারা বা যে সকল মানুষ ভিন্নপথের দিশারী হয়ে বাকাঁ পথে অর্জন করে তারা তো অপরাধি। কিন্তু যারা চায় অলৌকিক শক্তির সাহায্য বা ভাগ্যের চাকা ঘুরিয়ে কিছু পাওয়ার জন্য তারাই সাধারন ভাবে বিভিন্ন ধরনের আধ্যাত্মিক শক্তি সাধনা করে থাকে। কিছু ভিন্নপথের দিশারীও এর মাঝে রয়েছে যেমন যারা স্রষ্টাকে পেতে চায়, নিজেকে চিনতে চায়, অন্যের মঙ্গল সাধনায় শক্তি সঞ্চয় করতে চায় তারাও এ ধরনের সাধনা করে থাকে। বিশ্বাষ এটাই যে এ সকল শক্তির বলে অসম্ভবকে সম্ভব করা যায়, যা পাওয়া দূরহ অকল্পনীয় তা পাওয়া যায়। অতিতের ঘটনা পূঞ্জি, বিভিন্ন শাস্ত্রে, লোক মুখে এমন কি বর্তমান সময়েও বলা হয়ে থাকে “ আপনার আসে পাসের প্রতি দশজন সফল সার্থক সুখি ব্যক্তির জীবনের গভিরে ঢুকে দেখুন সে অবশ্যই কোন শক্তি সাধনার দ্বারা নয়তো কোন আধ্যাত্মিক গুরু/বাবার ছত্র ছায়ায় রয়েছে।”  অর্থাৎ বলা যেতে পারে যা আপনার নেই আপনি যদি তা পেতে চান এবং সেটি যদি বৃহৎ কিছু হয় তবে আপনাকে অবশ্যই কোন শক্তি সাধনা দ্বারাই অর্জন করতে হবে।

আমরা জানি বিশ্বে এমন কোন ধর্ম বা জাতী গোষ্টি নেই, যে ধর্মে আধ্যাত্মিকতা নেই, আর যেখানে আধ্যাত্মিকতা রয়েছে সেখানেই রয়েছে এমন হাজারো সাধনার প্রচলন। আমরা এখানে বহুল প্রচলিত ধর্মমতের উপর ভিত্তি করে ছোট বড় কয়েক শত সাধনা বিধির সংগ্রহ করেছি এবং সেই সাথে সে সকল সাধনা বিধির সঠিক দিক নির্দেশনা ও গাইড লাইন দেওয়ার জন্য সেই সকল ধর্মের আধ্যাত্মিক গুরুগনের সরাসরি সাহায্য নিয়ে থাকি। যাতে কোন ভাবে আমাদের প্রতিষ্ঠানের আওতাভুক্ত কোন সাধক সাধনা করে বিফল না হয়। কাহারো মনোরথ অপূর্ণ না থেকে যায়। হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ, খৃষ্টান ধর্মের সকল প্রকার সাধনার ব্যবস্থাই আমরা করে থাকি। 

আপনি যদি কোন বিষয়ে সাধনা করতে আগ্রহী হয়ে থাকেন, বা আপনার যদি বিশেষ কোন ব্যক্তি বা বস্তু পাওয়ার আকাঙ্খা থেকে থাকে, আর আপনি যদি এটা বুঝতে না পারেন কোন সাধনা দ্বারা আপনার আকাঙ্খা পূর্ণ হবে। তবে আপনি নির্দিধায় আমাদের সাথে আলোচনা করতে পারেন, আমরা অবশ্যই আপনাকে আপনার সঠিক প্রয়োজন ও সাধনা বিষয়ে সকল অজ্ঞতা দুর করতে সহায়তা প্রদান করবো।

আমরা যে সকল  ক্লাইন্ট বা স্টুডেন্টদের সাধনার জন্য নির্বাচিত করে থাকি অথবা যে সকল ব্যক্তি সাধনা করতে আগ্রহ প্রকাশ করে তেনাদেরকে আমাদের নির্দিষ্ট সহায়ক দ্বারা সাধনার সকল ছোট্ট থেকে ছোট্ট বিষয়ও পুঙ্খানু পুঙ্খানু ভাবে চুল চেরা বিশ্লেষন করে বুঝিয়ে দেই এবং সাধনার সম্পূর্ণ সফলতা না হওয়া অব্দি আমাদের সার্বিক তত্বাবধনা অবধারিত থাকে। অর্থাৎ আপনি আমাদের নিকট কোন সাধনা করার অনুমতি গ্রহন করলে সেটি সম্পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত আমরা আপনাকে সহযোগিতা প্রদান করবোই। সর্বপরি আমাদের প্রতিষ্ঠানে কোন সাধনাই বিফল হওয়ার কোন সুযোগ’ই নেই। আর এমন প্রতিশ্রুতি দেওয়ার মূল কারন হচ্ছে আমরা যে প্রশিক্ষণ প্রদান করি তা উক্ত বিষয়ের বিশেষজ্ঞ দ্বারাই করিয়ে থাকি। কোন রাস্তার পার্সের টিয়াপাখি তান্ত্রিক বা ফুটপাতের বইপড়ে ফেইসবুকের তান্ত্রিক মহাসম্রাট দ্বারা কোন কাজ করাই না।

বিভিন্ন স্থানে প্রতারিত হওয়া স্বল্পবুদ্ধির কিছু সরল মানুষদের নিকট জানতে পেরেছি যে ইদানিং পশ্চিম বঙ্গ ও বাংলাদেশের কিছু দুষ্টবুদ্ধির লোক যারা বিভিন্ন স্থানে তান্ত্রিক স্রষ্টা বা মহাসম্রাট নাম ধারন করেছে। তেনারা নাকি বলছে-জীন সাধনা, পরী সাধনা, কালী সাধনা শিব সাধনার মত বড় বড় সাধনাগুলো না করলেও আপনি চাইলেই জীন, পরী, কালী আয়ত্ব করতে পারবেন। আপনি শুধু সেই সকল মহাতান্ত্রিক গনকে তাদের নির্দিষ্ট হাদিয়া দিয়ে দিবেন, আর ব্যাস সেই মহামহিম তান্ত্রিক মহোদয় তার যে জীন পরী কালির খামার রয়েছে সেখান হতে রাত্রেই একটি আপনার বাড়ীতে পাঠিয়ে দিবে নাম ঠিকানা হাতে ধরিয়ে দিয়ে। আপনি সেই জীন বা কালি দিয়ে আপনার ইচ্ছিত বস্তু বা ব্যক্তিকে নিজ নিয়ন্ত্রনে আনতে পারবেন। ইত্যাদি ইত্যাদি আমরা সকল সময়’ই বলে আসছি আপনাদের সামনে যে সকল তান্ত্রিক জীন চালানের মাধ্যমে, বৌঠকের মাধ্যমে কাজ করার কথা বলে সে সকল লোক কোন তান্ত্রিক’ই নয়, শতভাগ ভুয়া ঠগবাজ প্রতারক। এদের থেকে সাবধান থাকুন। সাধনা=কথাটির মর্মার্থ বুঝুন।

প্রকৃত পক্ষে বর্তমান সময়েও কোন সাধনাই সহজ সাধ্য নয়, কোন সাধনাই নিজের ইচ্ছে মাফিক হয় না। অশরীরি শক্তিকে বশিভুত করা সকলের সাধ্যের কাজ নয়, একমাত্র বলা হয়ে থাকে “ত্রাটক” সাধনা সকলের জন্যই প্রযোজ্য। অন্য কোন শক্তি সাধনাই সকলের জন্য নয়।

স্রষ্টা আপনার ও আপনার পরিবার বর্গকে সদা সর্বদা সুখি ও সুন্দর রাখুক। তান্ত্রিকতা তার জন্যই প্রযোজ্য যেনারা স্রষ্টাতে বিশ্বাসি, পরলৌকিক জীবনে বিশ্বাসি, আধ্যাত্মিক শক্তিতে বিশ্বাসি। কখনই তাদের জন্য তান্ত্রিকতা নয় যারা নাস্তিক। কারন নাস্তিকের নিকট শ্রষ্টা ও শয়তান দু’ই মূল্যহীন।।


সাধনা